বায়োমেট্রিক্স (Biometrics)

একটি বড় প্রতিষ্ঠানের গেটে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সর লাগানো আছে। প্রতিষ্ঠানটিতে কারা কারা ঢুকতে পারবে আগে থেকেই তাদের ফিঙ্গারপ্রিন্ট নিয়ে কম্পিউটারে বিশেষ নিরাপত্তার সফটওয়্যারের ডেটাবেজে সংরক্ষিত করে রাখা আছে। গেটে আগত প্রবেশকারী তার আঙুল দিয়ে ফিঙ্গারপ্রিন্ট সেন্সরের বিশেষ স্থানে চাপ দিবে। ফিঙ্গারপ্রিন্ট তৈরি হয়ে তা কম্পিউটারে যাবে এবং কম্পিউটারে রক্ষিত ফিঙ্গারপ্রিন্টের সাথে মিলিয়ে দেখবে। যদি মিল পায় তাহলে ওকে সিগনাল আসবে। কম্পিউটারের সাথে ইন্টারফেস করা গেটটি খুলে যাবে। আর যদি না মিলে তাহলে গেট বন্ধ থাকবে। এখানে ফিঙ্গারপ্রিন্ট হলো একটি বায়োলজিক্যাল ডেটা। ফিঙ্গারপ্রিন্ট বা আঙুলের ছাপ হলো ইউনিক আইডেনটিটি। একজনের আঙুলের ছাপের সাথে আরেকজনের আঙুলের ছাপ মিলবে না। এখানে আঙুলের ছাপকে ব্যবহার করে কম্পিউটার সফটওয়্যার নির্ভর যে নিরাপত্তা ব্যবস্থা করা হয়েছে তা-ই হলো বায়োমেট্রিস পদ্ধতি।

বায়োমেট্রিক্স হলো বায়োলজিক্যাল ডেটা মাপা এবং বিশ্লেষণ করার বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তি। তথ্য প্রযুক্তিতে বায়োমেট্রিক্স সেই প্রযুক্তি যা মানুষের দেহের বৈশিষ্ট্য (যেমন: ডিএনএ, ফিঙ্গারপ্রিন্ট, চোখের রেটিনা এবং আইরিস, কণ্ঠস্বর, চেহারা এবং হাতের মাপ ইত্যাদি) মেপে এবং বিশ্লেষণ করে বৈধতা নির্ণয় করে। কম্পিউটার পদ্ধতিতে নিখুঁত নিরাপত্তার জন্য বায়োমেট্রিক্স পদ্ধতি ব্যবহৃত হয়। এ পদ্ধতিতে মানুষের বায়োলজিক্যাল ডেটা কম্পিউটারের ডেটাবেজে সংরক্ষিত করে রাখা হয় এবং অনুমতি প্রাপ্ত হয়। বায়োমেট্রিক সিস্টেমে সনাক্তকরণ (রফবহঃরভরপধঃরড়হ) এ যেসব বায়োলজিক্যাল ডেটা বিবেচনা করা হয় তা হলো-

১.       মুখ (ঋধপব) : মুখ বা চেহারার বৈশিষ্ট্য (ভধপরধষ পযধৎধপঃবৎরংঃরপং)  বিশ্লেষণ করা।

২.       ফিঙ্গারপ্রিন্ট (ঋরহমবৎঢ়ৎরহঃ) : প্রত্যেকের আলাদা একক বৈশিষ্ট্য হাতের ছাপ বিশ্লেষণ করা।

৩.      হ্যান্ড জিওমেটরি (ঐধহফ এবড়সবঃৎু) : হাতের গঠন (ংযধঢ়ব) এবং আঙ্গুলের দৈর্ঘ্যরে মাপ বিশ্লেষণ করা।

৪.       আইরিস (ওৎরং)  : চোখের মণির চারিপার্শ্বে বেষ্টিত রঙিন বলয় (পড়ষড়ৎবফ ৎরহম) বিশ্লেষণ করা।

৫.       রেটিনা (জবঃরহধ)  : চোখের পিছনের অক্ষিপটের (রেটিনা) মাপ বিশ্লেষণ করা।

৬.       সিগনেচার  (ঝরমহধঃঁৎব) : হাতের দস্তখত বিশ্লেষণ করা।

৭.       শিরা  (ঠবরহ) : হাত এবং কব্জির শিরার প্যার্টান বিশ্লেষণ করা।

৮.      কন্ঠস্বর (ঠড়রপব)  : প্রত্যেকের কন্ঠের ধ্বনির বৈশিষ্ট্য, সুরের উচ্চতা, সুরের মূর্ছনা, স্পন্দনের দ্রুততা ইত্যাদি বিশ্লেষণ করা।

 

ফিঙ্গারপ্রিন্ট বায়োমেট্রিক্স সিস্টেম

বর্তমানে আঙুলের ছাপ (ঋরহমবৎঢ়ৎরহঃ) নিয়ে নিরাপত্তা ব্যবস্থা একটি জনপ্রিয় বায়োমেট্রিক সিস্টেম। এ পদ্ধতিতে ফিঙ্গারপ্রিন্ট অপটিক্যাল স্ক্যানারের মাধ্যমে আঙুলের ছাপের ইমেজ নেয়া হয়। ইনপুটকৃত ইমেজের অর্থাৎ আঙুলের ছাপের বিশেষ কিছু একক বৈশিষ্ট্যকে ফিল্টার করা হয় এবং এনক্রিপ্টেড বায়োমেট্রিক কী হিসাবে সংরক্ষণ করা হয়। ফিঙ্গারপ্রিন্টের ইমেককে সংরক্ষণ না করে সংখ্যার সিরিজ (বাইনারি কোড) কে ভেরিফিকেশনের জন্য সংরক্ষণ করা হয়। ফিঙ্গার প্রিন্ট সিস্টেমের এলগরিদম এই বাইনারি কোডকে ইমেজে পুন:রূপান্তর করতে পারে না। তাই কেউ ফিঙ্গার প্রিন্টকে নকল (ডুপ্লিকেট) করতে পারে না। বায়োমেট্রিক্স ডিভাইস, যেমন ফিঙ্গার স্ক্যানারে থাকে একটি রিডার অথবা স্ক্যানিং ডিভাইস এবং সফটওয়্যার যা স্ক্যান করা তথ্যকে ডিজিটাল ফর্মে রূপান্তর করে এবং ম্যাচিং পয়েন্টগুলো তুলনা করে।

 

Advertisements

advertise

Copyright © Tutorials Valley